৩৭. সূরাঃ সাফ-ফাত

আয়াত অবতীর্ণঃ মক্কা
আয়াত সংখ্যাঃ ১৮২
রুকূঃ ৫
০১ وَالصَّافَّاتِ صَفًّا
শপথ তাদের যারা (ফেরেশতাগণ) সারিবদ্ধভাবে দন্ডায়মান।
০২ فَالزَّاجِرَاتِ زَجْرًا
ও যারা কঠোর পরিচালক (মেঘমালার)।
০৩ فَالتَّالِيَاتِ ذِكْرًا
এবং যারা কুরআন আবৃত্তিতে রত।
০৪ إِنَّ إِلَـٰهَكُمْ لَوَاحِدٌ
নিশ্চয়ই তোমাদের মা’বূদ এক।
০৫ رَّبُّ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ وَمَا بَيْنَهُمَا وَرَبُّ الْمَشَارِقِ
যিনি আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবী এবং এতোদুভয়ের অন্তর্বর্তী সব কিছুর প্রতিপালক এবং প্রতিপালক সকল উদয় স্থলের।
০৬ إِنَّا زَيَّنَّا السَّمَاءَ الدُّنْيَا بِزِينَةٍ الْكَوَاكِبِ
আমি পৃথিবীর আকাশকে নক্ষত্ররাজির শোভা দ্বারা সুশোভিত করেছি।
০৭ وَحِفْظًا مِّن كُلِّ شَيْطَانٍ مَّارِدٍ
এবং রক্ষা করেছি প্রত্যেক বিদ্রোহী শয়তান হতে।
০৮ لَّا يَسَّمَّعُونَ إِلَى الْمَلَإِ الْأَعْلَىٰ وَيُقْذَفُونَ مِن كُلِّ جَانِبٍ
ফলে, তারা ঊর্ধ্ব জগতের কিছু শ্রবণ করতে পারে না এবং তাদের প্রতি (জ্বলন্ত তারকা) নিক্ষিপ্ত হয় সকল দিক হতে-
০৯ دُحُورًا ۖ وَلَهُمْ عَذَابٌ وَاصِبٌ
বিতাড়নের জন্যে এবং তাদের জন্যে আছে অবিরাম শাস্তি।
০১০ إِلَّا مَنْ خَطِفَ الْخَطْفَةَ فَأَتْبَعَهُ شِهَابٌ ثَاقِبٌ
তবে কেউ হঠাৎ ছোঁ মেরে কিছু শুনে ফেললে জ্বলন্ত উল্কাপিন্ড তাদের পশ্চাদ্ধাবন করে।
০১১ فَاسْتَفْتِهِمْ أَهُمْ أَشَدُّ خَلْقًا أَم مَّنْ خَلَقْنَا ۚ إِنَّا خَلَقْنَاهُم مِّن طِينٍ لَّازِبٍ
তাদেরকে (কাফেরদেরকে) জিজ্ঞেস করঃ তাদেরকে সৃষ্টি করা কঠিনতর, না আমি অন্য যা কিছু সৃষ্টি করেছি তার সৃষ্টি কঠিনতর? তাদেরকে আমি সৃষ্টি করেছি আঠাল মাটি হতে।
০১২ بَلْ عَجِبْتَ وَيَسْخَرُونَ
তুমি তো বিস্ময়বোধ করছ আর তারা করছে বিদ্রূপ।
০১৩ وَإِذَا ذُكِّرُوا لَا يَذْكُرُونَ
এবং যখন তাদেরকে উপদেশ দেয়া হয় তখন তারা তা গ্রহণ করে না।
০১৪ وَإِذَا رَأَوْا آيَةً يَسْتَسْخِرُونَ
তারা কোন নিদর্শন (মু’জিযা) দেখলে উপহাস করে।
০১৫ وَقَالُوا إِنْ هَـٰذَا إِلَّا سِحْرٌ مُّبِينٌ
এবং বলেঃ এটা তো এক সুস্পষ্ট যাদু ব্যতীত আর কিছুই নয়।
০১৬ أَإِذَا مِتْنَا وَكُنَّا تُرَابًا وَعِظَامًا أَإِنَّا لَمَبْعُوثُونَ
আমরা যখন মরে যাবো এবং মাটি ও হাড্ডিতে পরিণত হবো, তখনো কি আমাদেরকে পুনরুত্থিত করা হবে?
০১৭ أَوَآبَاؤُنَا الْأَوَّلُونَ
এবং আমাদের পূর্বপুরুষদেরও?
০১৮ قُلْ نَعَمْ وَأَنتُمْ دَاخِرُونَ
বলঃ হ্যাঁ এবং তোমরা হবে লাঞ্ছিত।
০১৯ فَإِنَّمَا هِيَ زَجْرَةٌ وَاحِدَةٌ فَإِذَا هُمْ يَنظُرُونَ
ওটা একটি মাত্র প্রচন্ড শব্দ, আর তখনই তারা প্রত্যক্ষ করবে।
০২০ وَقَالُوا يَا وَيْلَنَا هَـٰذَا يَوْمُ الدِّينِ
এবং তারা বলবেঃ হায়! দুর্ভোগ আমাদের! এটাই তো কর্মফল দিবস!
০২১ هَـٰذَا يَوْمُ الْفَصْلِ الَّذِي كُنتُم بِهِ تُكَذِّبُونَ
এটাই ফায়সালার দিন যা তোমরা অস্বীকার করতে।
০২২ احْشُرُوا الَّذِينَ ظَلَمُوا وَأَزْوَاجَهُمْ وَمَا كَانُوا يَعْبُدُونَ
(ফেরেশরাদেরকে বলা হবেঃ) একত্রিত কর যালিম এবং তাদের সহচরদেরকে এবং তাদেরকে, যাদের তারা ইবাদত করতো-
০২৩ مِن دُونِ اللَّهِ فَاهْدُوهُمْ إِلَىٰ صِرَاطِ الْجَحِيمِ
আল্লাহর পরিবর্তে এবং তাদেরকে হাঁকিয়ে নিয়ে যাও জাহান্নামের পথে।
০২৪ وَقِفُوهُمْ ۖ إِنَّهُم مَّسْئُولُونَ
অতঃপর তাদেরকে থামাও, কারণ তাদেরকে প্রশ্ন করা হবেঃ
০২৫ مَا لَكُمْ لَا تَنَاصَرُونَ
তোমাদের কি হল যে, তোমরা একে অপরের সাহায্য করছ না?
০২৬ بَلْ هُمُ الْيَوْمَ مُسْتَسْلِمُونَ
বস্তুতঃ সেদিন তারা আত্মসমর্পণ করবে।
০২৭ وَأَقْبَلَ بَعْضُهُمْ عَلَىٰ بَعْضٍ يَتَسَاءَلُونَ
এবং তারা একে অপরের সামনা সামনি হয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করবে-
০২৮ قَالُوا إِنَّكُمْ كُنتُمْ تَأْتُونَنَا عَنِ الْيَمِينِ
তারা বলবেঃ তোমরা তো (শক্তি প্রয়োগ করে পথভ্রষ্ট করতে) ডান দিক থেকে আমাদের নিকট আসতে।
০২৯ قَالُوا بَل لَّمْ تَكُونُوا مُؤْمِنِينَ
তারা বলবেঃ তোমরা তো বিশ্বাসীই ছিলে না।
০৩০ وَمَا كَانَ لَنَا عَلَيْكُم مِّن سُلْطَانٍ ۖ بَلْ كُنتُمْ قَوْمًا طَاغِينَ
এবং তোমাদের উপর আমাদের কোন কর্তৃত্ব ছিল না; বস্তুতঃ তোমরাই ছিলে সীমালঙ্ঘনকারী সম্প্রদায়।
০৩১ فَحَقَّ عَلَيْنَا قَوْلُ رَبِّنَا ۖ إِنَّا لَذَائِقُونَ
আমাদের বিরুদ্ধে আমাদের প্রতিপালকের কথা সত্য হয়েছে; আমাদেরকে অবশ্যই শাস্তি আস্বাদন করতে হবে।
০৩২ فَأَغْوَيْنَاكُمْ إِنَّا كُنَّا غَاوِينَ
আমরা তোমাদেরকে বিভ্রান্ত করেছিলাম, কারণ আমরা নিজেরাও ছিলাম বিভ্রান্ত।
০৩৩ فَإِنَّهُمْ يَوْمَئِذٍ فِي الْعَذَابِ مُشْتَرِكُونَ
তারা সবাই সেই দিন আযাবে শরীক হবে।
০৩৪ إِنَّا كَذَٰلِكَ نَفْعَلُ بِالْمُجْرِمِينَ
অপরাধীদের প্রতি আমি এরূপই করে থাকি।
০৩৫ إِنَّهُمْ كَانُوا إِذَا قِيلَ لَهُمْ لَا إِلَـٰهَ إِلَّا اللَّهُ يَسْتَكْبِرُونَ
যখন তাদেরকে বলা হতো যে, আল্লাহ ছাড়া কোন (সত্য) মা’বূদ নেই তখন তারা অহংকার করতো।
০৩৬ وَيَقُولُونَ أَئِنَّا لَتَارِكُو آلِهَتِنَا لِشَاعِرٍ مَّجْنُونٍ
এবং বলতোঃ আমরা কি এক পাগল কবির কথায় আমাদের মা’বূদদেরকে বর্জন করবো?
০৩৭ بَلْ جَاءَ بِالْحَقِّ وَصَدَّقَ الْمُرْسَلِينَ
বরং সে তো সত্য নিয়ে এসেছে এবং সে সমস্ত রাসূলকে সত্য বলে স্বীকার করেছে।
০৩৮ إِنَّكُمْ لَذَائِقُو الْعَذَابِ الْأَلِيمِ
তোমরা অবশ্যই যন্ত্রণাদায়ক শাস্তির স্বাদ গ্রহণ করবে।
০৩৯ وَمَا تُجْزَوْنَ إِلَّا مَا كُنتُمْ تَعْمَلُونَ
এবং তোমরা যা করতে তারই প্রতিফল পাবে।
০৪০ إِلَّا عِبَادَ اللَّهِ الْمُخْلَصِينَ
তবে তারা নয় যারা আল্লাহর একনিষ্ঠ বান্দা।
০৪১ أُولَـٰئِكَ لَهُمْ رِزْقٌ مَّعْلُومٌ
তাদের জন্যে আছে নির্ধারিত রিযিক-
০৪২ فَوَاكِهُ ۖ وَهُم مُّكْرَمُونَ
ফলমূল এবং তারা হবে সম্মানিত;
০৪৩ فِي جَنَّاتِ النَّعِيمِ
থাকবে নেয়ামতপূর্ণ জান্নাতে।
০৪৪ عَلَىٰ سُرُرٍ مُّتَقَابِلِينَ
তারা মুখোমুখি হয়ে আসনে বসবে।
০৪৫ يُطَافُ عَلَيْهِم بِكَأْسٍ مِّن مَّعِينٍ
তাদেরকে ঘুরে ঘুরে পরিবেশন করা হবে বিশুদ্ধ জাম পানিও পাত্র ঝর্ণাধারা হতে।
০৪৬ بَيْضَاءَ لَذَّةٍ لِّلشَّارِبِينَ
সাদা উজ্জ্বল যা হবে পানকারীদের জন্যে সুস্বাদু।
০৪৭ لَا فِيهَا غَوْلٌ وَلَا هُمْ عَنْهَا يُنزَفُونَ
তাতে (তাদের মাথা ঘুরাবে না এবং তারা তাতে মাতালও হবে না।
০৪৮ وَعِندَهُمْ قَاصِرَاتُ الطَّرْفِ عِينٌ
আর তাদের সঙ্গে থাকবে আনত নয়না (অবনত ও বিনিত), টানাটানা চক্ষু বিশিষ্ট হূরগণ।
০৪৯ كَأَنَّهُنَّ بَيْضٌ مَّكْنُونٌ
তারা যেন সুরক্ষিত ডিম্ব।
০৫০ فَأَقْبَلَ بَعْضُهُمْ عَلَىٰ بَعْضٍ يَتَسَاءَلُونَ
তারা একে অপরের সামনা সামনি হয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x