শ্লোক – ১৬-১৮

অনন্তবিজয়ং রাজা কুন্তীপুত্রো যুধিষ্ঠিরঃ।

নকুলঃ সহদেবশ্চ সুঘোষমণিপুষ্পকৌ ।। ১৬ ।।

কাশ্যশ্চ পরমেষাসঃ শিখন্ডী চ মহারথঃ।

ধৃষ্টদ্যুম্নো বিরাটশ্চ সাত্যকিশ্চাপরাজিতঃ ।। ১৭ ।।

দ্রুপদো দ্রৌপদেয়াশ্চ সর্বশঃ পৃথিবীপতে।

সৌভদ্রশ্চ মহাবাহুঃ শঙ্খান দধ্মুঃ পৃথক পৃথক ।। ১৮ ।।

অনন্তবিজয়ম- অনন্তবিজয় নাম শঙ্খ; রাজা- রাজা; কুন্তীপুত্রঃ- কুন্তীর পুত্র; যুধিষ্ঠিরঃ- যুধিষ্ঠির; নকুলঃ- নকুল; সহদেবঃ সহদেব; চ- এবং; সুঘোষমণিপুষ্পকৌ – সুঘোষ ও মণিপুষ্পক নামক শঙ্খ; কাশ্যঃ- কাশীর (বারাণসীর) রাজা; চ- এবং; পরমেষাসঃ- মহান ধনুর্ধর; শিখন্ডী- শিখন্ডী; চ- ও; মহারথঃ- সহস্র সহস্র যোদ্ধার বিরুদ্ধে একাকী যুদ্ধ করতে সক্ষম মহারথী; ধৃষ্টদ্যুম্নঃ- (মহারাজ দ্রুপদের পুত্র) ধৃষ্টদ্যুম্ন; বিরাটঃ- বিরাট (যিনি পাণ্ডবদের অজ্ঞাতবাস কালে আশ্রয় দিয়েছিলেন); চ- ও; সাত্যকিঃ- সাত্যকি (শ্রীকৃষ্ণের সারথী যুযুধানের মতো); চ- এবং; অপরাজিতঃ- যিনি কখনো পরাজিত হননি; দ্রুপদঃ- পাঞ্জালের রাজা দ্রুপদ; দ্রৌপদেয়াঃ- দ্রৌপদীর পুত্রগণ; চ- ও; সর্বশঃ- সকলে; পৃথিবীপতে- হে মহারাজ; সৌভদ্রঃ- সুভদ্রার পুত্র অভিমন্যু; চ- ও, মহাবাহুঃ- মহা বলবান; শঙ্খান- শঙ্খসমূহ; দধ্মুঃ- বাজালেন; পৃথক পৃথক- একে একে।

গীতার গান

যুধিষ্ঠিরে ধরে শঙ্খ রাজা কুন্তীপুত্র।

অনন্তবিজয় সেই ঘোষণা সর্বত্র।।

নকুল বাজাল শঙ্খ সুঘোষ তার নাম।

সহদেব বাজাল মণিপুষ্পক নাম।।

তারপর একে একে যত মহারথী।

ধনুর্ধর কাশীরাজ শিখন্ডী সারথী।।

ধৃষ্টদ্যুম্ন বিরাটাদি বীর সে সাত্যকি।

মহাযোদ্ধা পারে যারা যুঝিতে একাকী।।

দ্রুপদ আর দ্রৌপদেয় পৃথিবীপতে।

সৌভদ্র বাজাল শঙ্খ যার যার মতে।।

অনুবাদঃ কুন্তীপুত্র মহারাজ যুধিষ্ঠির অনন্তবিজয় নামক শঙ্খ বাজালেন এবং নকুল ও সহদেব বাজালেন সুঘোষ ও মণিপুষ্পক নামক শঙ্খ। হে মহারাজ! তখন মহান ধনুর্ধর কাশীরাজ, প্রবল যোদ্ধা শিখন্ডী, ধৃষ্টদ্যুম্ন, বিরাট, অপরাজিত সাত্যকি, দ্রুপদ, দ্রৌপদীর পুত্রগণ, সভদ্রার মহা বলবান পুত্র এবং অন্য সকলে তাঁদের নিজ নিজ পৃথক শঙ্খ বাজালেন।

তাৎপর্যঃ সঞ্জয় সুকৌশলে ধৃতরাষ্ট্রকে জানিয়ে দিলেন যে, পান্ডুপুত্রদের প্রতারণা করে তাঁর নিজের ছেলেদের সিংহাসনে বসাবার দুরভিসন্ধি করাটা তাঁর পক্ষে মোটেই প্রশংসনীয় কাজ হয়নি। চারদিক থেকেই ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছিল যে, কুরুবংশের সমূলে বিনাশ হবে এবং পিতামহ ভীষ্ম থেকে শুরু করে অভিমন্যু আদি পৌত্রেরা সকলেই যুদ্ধে নিহত হবেন। পৃথিবীর নানা দেশ থেকে রাজা-মহারাজা ও রথী-মহরথীরা সকলেই নিহত হবেন। এই বিপর্যয়ের মূল কারণ ছিলেন মহারাজ ধৃতরাষ্ট্র স্বয়ং, কারণ তাঁর পুত্রদের দুষ্কর্মে তিনি কখনো কোন রকম বাধা দেননি, উপরন্তু তাদের সব রকম দুষ্কর্মে তিনি অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন।

0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x