প্রথম অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা হয়েছিল- মহাবিশ্বের সবকিছু নিয়ে সম্পূর্ণ একটি ঐক্যবদ্ধ তত্ত্ব একবারে গঠন করা খুব কঠিন হোত। তার বদলে আমরা একাধিক আংশিক তত্ত্ব আবিষ্কার করে অগ্রসর হয়েছি। এই তত্ত্বগুলি ঘটনাসমষ্টির একটি সীমিত অঞ্চল ব্যাখ্যা করে। এই কাজে তারা অন্যান্য অভিক্রিয়া (effects) অগ্রাহ্য করে কিম্বা কিছু কিছু সংখ্যার সাহায্যে সেগুলির আসন্নতায় (approximating them) পৌঁছাতে চেষ্টা করে। (উদাহরণঃ রসায়ন শাস্ত্র পরমাণুগুলির কেন্দ্রকের গঠন না জেনে তাদের পারস্পারিক প্রতিক্রিয়া গণনা অনুমোদন করে)। শেষ পর্যন্ত কিন্তু একটি সম্পূর্ণ ঐক্যবদ্ধ এবং সামঞ্জস্যপূর্ণ তত্ত্ব আবিষ্কার আশা করা যায়। সমস্ত আংশিক তত্ত্বই আসন্নতারূপে সে তত্ত্বের অন্তর্ভুক্ত হবে। সেই আংশিক তত্ত্বগুলির প্রয়োজন হবে না, ঘটনাবলীর সঙ্গে সামঞ্জস্যতা রক্ষার জন্য তত্ত্বে কয়েকটি যাদৃচ্ছিক সংখ্যার মূল্য বেছে নেওয়া। এই রকম একটি তত্ত্ব অনুসন্ধানের নাম “পদার্থবিদ্যা ঐক্যবদ্ধ করা”। আইনস্টাইন জীবনের শেষ ক’ বছরের অধিকাংশ সময়ই ব্যয় করেছেন এরকম একটি তত্ত্বের সন্ধানে। কিন্তু সফল হননি। কারণ তখনও এরকম তত্ত্ব আবিষ্কারের সময় হয়নি। মহাকর্ষ এবং বিদ্যুৎ চুম্বকীয় বল সম্পর্কে আংশিক তত্ত্ব ছিল কিন্তু কেন্দ্রকীয় বল (nuclear forces) সম্পর্কে তখন সামান্যই জানা ছিল। তাছাড়া কণাবাদী বলবিদ্যা বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ  ভূমিকা পালন করা সত্ত্বেও আইনস্টাইন এই বলবিদ্যার (quantum mechanics) বাস্তবতা স্বীকার করতেন না। তবুও মনে হয় যে মহাবিশ্বে আমরা বসবাস করি তার একটি মূলগত অবয়ব অনিশ্চয়তার নীতি। সুতরাং আবশ্যিক ভাবেই এই নীতিকে একটি সফল ঐক্যবদ্ধ তত্ত্বের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

এরকম একটি তত্ত্ব আবিষ্কারের সম্ভাবনা এখন অনেক বেশি, তার কারণ এখন আমরা মহাবিশ্ব সম্বন্ধে অনেক বেশি জানি। এখন আমি এ বিষয়ের বিবরণ দেব কিন্তু অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস সম্পর্কে আমাদের সাবধান হতে হবে- আগেও এরকম মিথ্যা প্রভাত (false dawn) আমাদের হয়েছে। উদাহরণঃ এই শতাব্দীর প্রথমে মনে হয়েছিল অবিচ্ছিন্ন পদার্থের স্থিতিস্থাপকতা এবং তাপ পরিবহনের মতো ধর্মের বাগ্বিধিতে সমস্তই ব্যাখ্যা করা যাবে। পারমাণবিক গঠন এবং অনিশ্চয়তার নীতি আবিষ্কারের ফলে সে আশা সজোরে ভেঙ্গে পড়ে। তারপর আমার ১৯২৮ সালে পদার্থবিদ নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ম্যাক্স বর্ণ (Max Born) গয়েটিংগেন বিশ্ববিদ্যালয়ে (Gottingen University) একদল সাক্ষাৎকারীকে বলেছিলেন “আমরা যাকে পদার্থবিদ্যা বলি ছ’মাসেই তার সমাপ্তি ঘটবে”। তাঁর বিশ্বাসের ভিত্তি ছিল অনতিকাল পূর্বে ডিরাকের (Dirac) আবিষ্কৃত ইলেক্ট্রনের আচরণ  নিয়ন্ত্রণকারী সমীকরণ। তখন মনে হয়েছিল এরকম আর একটি সমীকরণ প্রোটনের আচরণ নিয়ন্ত্রণ করবে। তখন পর্যন্ত প্রোটনই (proton) ছিল অন্য একটি মাত্র জানিত কণিকা। সুতরাং এই সমীকরণ জানা হয়ে গেলেই তাত্ত্বিক পদার্থবিদ্যা শেষ হবে। কিন্তু তারপর নিউট্রন এবং কেন্দ্রকীয় বল আবিষ্কার সে আশারও মাথায় আঘাত করে। একথা আমি বলছি, তবুও আমি বিশ্বাস করি- সতর্ক আশাবাদের যুক্তি রয়েছে, আমরা হয়তো প্রকৃতির চূড়ান্ত বিধি অনুসন্ধানের শেষ প্রান্তের কাছাকাছি এসে গিয়েছি।

আগের অধ্যায়গুলিতে আমি ব্যাপক অপেক্ষবাদ, মহাকর্ষের আংশিক তত্ত্ব এবং দুর্বল, সবল ও বিদ্যুৎচুম্বকীয় বল নিয়ন্ত্রনকারী আংশিক তত্ত্বের বিবরণ দিয়েছি। তথাকথিত মহান ঐক্যবদ্ধ তত্ত্বে (grand unified theory কিম্বা GUT) শেষের তিনটির সমন্বয় করা যেতে পারে, তবে এগুলি খুব সন্তোষজনক নয়। তার কারণ মহাকর্ষ তার অন্তর্ভুক্ত নয় এবং বিভিন্ন কণিকার আপেক্ষিক ভরের মতো এমন কতগুলি সংখ্যা সেগুলির ভিতর রয়েছে, যেগুলি তত্ত্বের ভবিষ্যদ্বাণী থেকে বলা যায় না, পর্যবেক্ষণফলের সঙ্গে খাপ খাওয়ার মতো করে বেছে নিতে হয়। মহাকর্ষকে অন্যান্য বলের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ করা বিষয়ে প্রধান অসুবিধা হল ব্যাপক অপেক্ষবাদ একটি “চিরায়ত” (classical) তত্ত্ব অর্থাৎ কণাবাদী বলবিদ্যার অনিশ্চয়তার নীতি এর অন্তর্ভুক্ত নয়। অন্যদিকে অন্যান্য আংশিক তত্ত্বগুলি অপরিহার্যভাবে কণাবাদী বলবিদ্যার উপর নির্ভরশীল। সুতরাং প্রথম ধাপ হল ব্যাপক অপেক্ষবাদের সঙ্গে অনিশ্চয়তাবাদের সমন্বয় করা। আমরা দেখেছি এর কয়েকটি উল্লেখযোগ্য ফলশ্রুতি হতে পারে- যেমন কৃষ্ণগহ্বরগুলি কালো নয়, মহাবিশ্ব স্বয়ংসম্পূর্ণ তবে কোনো অনন্যতাহীন এবং সীমানাহীন। অসুবিধাটি সপ্তম অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা হয়েছে- অনিশ্চয়তার নীতির অর্থ হল, এমন কি “শূন্য” (empty) স্থানও জোড়া কল্পিত কণিকা এবং কল্পিত বিপরীত কণিকায় পূর্ণ। এর জোড়গুলিতে শক্তি থাকবে অসীম, সুতরাং আইনস্টাইনের বিখ্যাত সমীকরণ E = mc2 অনুসারে তাদের ভর (mass) হবে অসীম। তাদের মহাকর্ষীয় আকর্ষণ মহাবিশ্বকে বক্র করে অসীম ক্ষুদ্র আকারে নিয়ে আসবে।

অন্যান্য আংশিক তত্ত্বেও দৃষ্টত অবিশবাস্য অনেকটা একই রকম বহু অসীম (infinite) দেখা যায় কিন্তু পুনঃস্বাভাবিকীকরণ পদ্ধতির (renormalization) সাহায্যে এই সমস্ত ক্ষেত্রে অসীমগুলিকে বাতিল করা সম্ভব। এ পদ্ধতিতে অন্যান্য অসীম উপস্থিত করে অসীমগুলিকে বাতিল করতে হয়। যদিও এই পদ্ধতি গাণিতিকভাবে সন্দেহজনক তবুও কার্যক্ষেত্রে এ পদ্ধতি ফলপ্রদ। এই সমস্ত তত্ত্বে ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য এই পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছে। এই ভবিষ্যদ্বাণীগুলির পর্যবেক্ষণের সঙ্গে মিলের নির্ভুলতা অসাধারণ। একটি সম্পূর্ণ তত্ত্ব আবিষ্কারের চেষ্টার দিক থেকে কিন্তু পুনঃস্বাভাবিকীকরণ পদ্ধতির একটি গুরুত্বপূর্ণ ত্রুটি আছে। তার কারণ এর অর্থঃ তত্ত্ব থেকে ভর এবং বলগুলির শক্তি সম্পর্কে পূর্বাভাস দেওয়া যায় না। পর্যবেক্ষণফলের সঙ্গে খাপ খাওয়ার মতো করে বেছে নিতে হয়।

অনিশ্চয়তার বিধিকে ব্যাপক অপেক্ষবাদের অন্তর্ভুক্ত করতে হলে মাত্র দুটি সংখ্যার সঙ্গে সমন্বয় (adjust) করতে হবেঃ মহাকর্ষের শক্তি এবং মহাবিশ্বতত্ত্বের ধ্রুবকের মূল্যাংক (value of cosmological constant)।

চিত্র- ১০.১ এবং চিত্র- ১০.২

কিন্তু এই দুটি সংখ্যার সমন্বয়ই সমস্ত অসীম দূর করার পক্ষে যথেষ্ট নয়। সুতরাং এমন একটি তত্ত্ব পাওয়া গেল যে তত্ত্বে স্থান-কালের বক্রতার মতো কয়েকটি পরিমাণ সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী হলঃ সেগুলি অসীম কিন্তু এই পরিমাণগুলি পর্যবেক্ষণ করা এবং মাপা সম্ভব। তার ফলে দেখা যায় সেগুলি সসীম-তাতে কোনো ভুল নেই। ব্যাপক অপেক্ষবাদ এবং অনিশ্চয়তার নীতির এই সমন্বয়ে এই সমস্যার অস্তিত্ব রয়েছে এরকম সন্দেহ কিছুদিন ধরেই ছিল কিন্তু বিস্তৃত গণনা দ্বারা এই সমন্বয়ে এই সমস্যার অস্তিত্ব রয়েছে এরকম সন্দেহ কিছুদিন ধরেই ছিল কিন্তু বিস্তৃত গণনা দ্বারা এ সন্দেহের সত্যতা চুড়ান্তভাবে প্রমাণিত হয় ১৯৭২ সালে। চার বছর পর “অতিমহাকর্ষ” (supergravity) নামে একটি সম্ভাব্য সমাধান উপস্থিত করা হয়। গ্র্যাভিটন নামে চক্রণ-২ কণিকা মহাকর্ষীয় বল বহন করে। সম্ভাব্য সমাধানের কল্পন ছিল গ্র্যাভিটনের সঙ্গে চক্রণ ৩/২, ১, ১/২ এবং ০ বিশিষ্ট কয়েকটি নতুন কণিকা সংযুক্ত করা। এক অর্থে এই সমস্ত কণিকাকে একই “অতিকণিকার” (superparticle) বিভিন্ন অবয়ব বলে বিচার করা যায়। এইভাবে ঐক্যবদ্ধ করা যায় চক্রণ ১/২ এবং ৩/২ পদার্থ কণিকা এবং চক্রণ ০। ১ এবং ২ বলবাহী (force carrying) কণিকা। চক্রন ১/২ এবং ৩/২ বিশিষ্ট কল্পিত (virtual) কণিকা/বিপরীত কণিকার জোড়ের তাহলে অপরা (negative) শক্তি থাকবে, সুতরাং চক্রণ ২, ১ এবং ০ বিশিষ্ট কল্পিত জোড়ের পরা শক্তিকে বাতিল করতে চাইবে। এর ফলে সম্ভাব্য অনেক অসীম বাতিল হয়ে যাবে কিন্তু সন্দেহ ছিল কিছু অসীম বোধ হয় তখনও থেকে যাবে। কিন্তু বাতিল না করা কোনো অসীম থেকে গেল কিনা সেই গণনা ছিল এত জটিল এবং দীর্ঘ যে কেউই সে দায়িত্ব নিতে প্রস্তুত ছিল না। গণনায় দেখা গিয়েছিল একটি কম্পিউটার ব্যবহার করলেও সময় লাগবে প্রায় চার বছর এবং অন্তত একটি ভুলের সম্ভাবনা থাকবে খুবই বেশি এমন কি তার চাইতে বেশি ভুলের সম্ভাবনাও থাকতে পারে। সুতরাং উত্তরটি ঠিক হয়েছে জানতে হলে অন্য একজনকে গণনা একই উত্তর পেতে হবে। সে সম্ভাবনাও খুব বেশি ছিল না।

এই সমস্ত সমস্যা এবং অতিমহাকর্ষ তত্ত্বগুলির কণিকার সঙ্গে পর্যবেক্ষণ করা কণিকাগুলির মিল নেই মনে হওয়া সত্ত্বেও অধিকাংশ বৈজ্ঞানিকই বিশ্বাস করতেন অতিমহাকর্ষই সম্ভবত পদার্থবিদ্যাকে ঐক্যবদ্ধ করার সমস্যার সঠিক সমাধান। মহাকর্ষকে অন্যান্য বলের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ করার এটিই মনে হয়েছিল সবচাইতে ভাল উপায়। কিন্তু  ১৯৮৪ সালে যে তত্ত্বগুলিকে তন্তুতত্ত্ব (string theories) বলা হয় সেই তত্ত্বগুলির সপক্ষে একটি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসে। কণিকাগুলির অবস্থান স্থানে একক বিন্দুতে কিন্তু এই তত্ত্বগুলিতে মূলগত বস্তু (basic objects) কণিকা নয়। এই তত্ত্বের মূলগত বস্তুর দৈর্ঘ্য আছে কিন্তু অন্য কোনো মাত্রা (dimension) নেই। এগুলি অসীম কৃশ (thin) তন্তুর মতো। এই তন্তুগুলির তথাকথিত মুক্ত (open) তন্তুর মতো প্রান্ত (ends) থাকতে পারে কিম্বা নিজের সঙ্গে যুক্ত হয়ে বদ্ধ ফাঁস (loop) হতে পারে (বদ্ধতন্তু) (চিত্র- ১০.১ এবং ১০.২)। একটি কণিকা কালের প্রতিটি ক্ষণে স্থানের একটি বিন্দু অধিকার করে থাকে। সুতরাং স্থান-কালে একটি রেখা (বিশ্বরেখা- world line) কণিকার ইতিহাসের প্রতিনিধি হতে পারে। অন্য দিকে একটি তন্তু কালের প্রতিক্ষণে স্থানের একটি রেখা অধিকার করে থাকে। সুতরাং স্থান-কালে এর ইতিহাস একটি দ্বিমাত্রিক পৃষ্ঠ (two dimensional surface)। এর নাম বিশ্বপাত (world sheet) (এইরকম একটি বিশ্বপাতের যে কোনো একটি বিন্দুর বিবরণ দেওয়া যায় দুটি সংখ্যা দিয়ে- একটি নির্দেশ করে কাল, অন্যটি নির্দেশ করে তন্তুর উপর বিন্দুটির অবস্থান)। একটি মুক্ত তন্তুর বিশ্বপাত একটি ফালি (strip)। এর কিনারাগুলি তন্তুর প্রান্তগুলি তন্তুর প্রান্তগুলির স্থান-কালের ভিতর দিয়ে পথের প্রতিরূপ (represent) চিত্র ১০.২)। একটি বদ্ধতন্তুর বিশ্বপাত (world sheet) একটি সিলিন্ডার কিম্বা একটি নল (cylinder or tube) (চিত্র ১০.)। নলের ফালি (slice) একটি বৃত্ত। সে বৃত্ত একটি বিশেষ কালে তন্তুর অবস্থানের প্রতিরূপ (represents)।

চিত্রঃ ১০.৩

দুই খন্ড তার (string) যুক্ত হয়ে একক একটি তন্তু গঠন করতে পারে। যুক্ত তন্তুগুলির ক্ষেত্রে তাদের প্রান্তগুলি শুধুমাত্র যুক্ত হয় (চিত্র- ১০.৩)। আবার বদ্ধতন্তুগুলির ক্ষেত্রে ব্যাপারটি অনেকটা পায়জামার দুটি পায়ের জোড়া লাগার মতো (চিত্র- ১০.৪)। একই ভাবে একখন্ড তন্তু বিভক্ত হয়ে দুটি তন্তু হতে পারে। আগে যেগুলিকে কণিকা ভাবা হোত আজকাল সেগুলির চিত্রন তন্তু দিয়ে প্রবাহিত তরঙ্গের মতো, এর তুলনা করা যায় ঘুড়ির সুতো দিয়ে প্রবাহিত তরঙ্গের সঙ্গে। একটি কণিকা থেকে অন্য একটি কণিকা নির্গত হওয়া কিম্বা যুক্ত হওয়ার অনুরূপ। উদাহরণঃ সূর্যের পৃথিবীর প্রতি মহাকর্ষীয় বলের ব্যাপার চিত্র ছিল সূর্যের একটি কণিকা থেকে একটি গ্র্যাভিটন (graviton) নির্গত হওয়া এবং পৃথিবীর একটি কণিকা কর্তৃক বিশোষিত হওয়া (চিত্র- ১০.৫)। তন্তুতত্ত্বে এই পদ্ধতি H আকারের নলের (tube or pipe) অনুরূপ (চিত্র- ১০.৬) [তন্তুতত্ত্ব অনেকটা জল কিম্বা গ্যাসের জন্য নল বসানোর কাজের মতো (plumbing)]।

চিত্রঃ ১০.৪

দুটি H –এর দুটি উল্লম্ব বাহু সূর্য এবং পৃথিবীর কণিকাগুলির অনুরূপ এবং আনুভূমিক (horizontal), আড়াআড়িভাবে অবস্থিত দন্ড সূর্য এবং পৃথিবীর ভিতরে গমনাগমনশীল গ্র্যাভিটনের অনুরূপ।

তন্তুতত্ত্বের ইতিহাস অদ্ভুত। এ তত্ত্ব ১৯৬০ –এর দশকের শেষ দিকে আবিষ্কৃত হয়েছিল সবল (strong) বল ব্যাখ্যার জন্য একটি তন্তু আবিষ্কারের চেষ্টার ফলে। চিন্তনটি ছিলঃ প্রোটন কিম্বা নিউট্রনের মতো কণিকাগুলিকে তন্তুর উপর তরঙ্গরূপে কল্পনা করা যায়। কণিকাগুলির অন্তর্বর্তী সবল বলগুলি (strong forces) হবে অন্যান্য তন্তুখন্ডের ভিতর দিয়ে গতিশীল একাধিক তন্তুখন্ডের অনুরূপ- মাকড়সার জালের মতো। এই তন্তু অনুসারে কণিকগুলির অন্তর্বর্তী সবল বলের পর্যবেক্ষণ করা মাপনের সমকক্ষ হতে হলে তন্তুগুলিকে রবার ব্যান্ডের মতো হতে হবে এবং তার আকর্ষণ (pull) হতে হবে দশ টন।

চিত্রঃ ১০.৫ এবং চিত্রঃ ১০.৬

১৯৭৪ সালে প্যারিসের জোল শার্ক (Joel Schwark) এবং ক্যালিফোর্নিয়ার ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজির জন শোয়ার্জ (John Schwarz) একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করেন। সেই পত্রে তাঁরা দেখিয়েছিলেন তন্তুতত্ত্ব মহাকর্ষীয় বলের বিবরণ দিতে পারে শুধুমাত্র যদি তন্তুর বিততি (টান- tension) অনেক বেশি হয়- প্রায় এক হাজার মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন (একের পিঠে উনচল্লিশটা শূন্য) টন হয় তাহলে। স্বাভাবিক দৈর্ঘ্যের মানে তন্তুতত্ত্ব এবং ব্যাপক অপেক্ষবাদের ভবিষ্যদ্বাণী একেবারেই অভিন্ন হবে কিন্তু পার্থক্য হবে অত্যন্ত স্বল্প দূরত্বে অর্থাৎ এক সেন্টিমিটারের এক হাজার মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন ভাগের এক ভাগের কম হলে (এক সেন্টিমিটারকে একের পিঠে তেত্রিশটি শূন্য দিলে যে সংখ্যা হয় সেটি ভাগ করলে)। কিন্তু তাঁদের গবেষণা বিশেষ মনোযোগ আকর্ষণ করেনি, তার কারণ প্রায় সেই সময়ই অধিকাংশ লোক সবল বলের সপক্ষে মূল তন্তুতত্ত্ব পরিত্যাগ করেন। তাঁরা সমর্থন করেন কার্ক (quark) এবং গ্লুয়ন (Gluon) ভিত্তিক তত্ত্ব। মনে হয়েছিল পর্যবেক্ষণের ফলের সঙ্গে এই তত্ত্বেরই সামঞ্জস্য বেশি। শার্কের মৃত্যুর ব্যাপারটি বড়ই দুঃখের (তাঁর ডায়াবেটিস অর্থাৎ মধুমেহ ছিল। তিনি অজ্ঞান হয়ে যান- অর্থাৎ তাঁর হয় ডায়াবেটিস কোমা। তাঁকে ইনসুলিন ইঞ্জেকশন দেওয়ার মতো কেউ কাছাকাছি ছিল না)। সুতরাং শোয়ার্জ একলা পড়ে গেলেন। বোধহয় তিনিই ছিলেন তন্তুতত্ত্বের একমাত্র সমর্থক কিন্তু তখন তন্তুর প্রস্তাবিত বিততির মান অনেক বেশি।

১৯৮৪ সালে তন্তুর উপর আকর্ষণ হঠাৎ পুনরুজ্জীবিত হয়। আপাতদৃষ্টিতে তার কারণ ছিল দুটি। একটি ছিলঃ অতিমহাকর্ষ সীমিত কিম্বা আমরা যে কণিকাগুলি পর্যবেক্ষণ করি সেগুলি অতিমহাকর্ষ ব্যাখ্যা করতে পারেঃ এই দুটি বিষয় প্রদর্শনের ব্যাপারে আসলে কোনো অগ্রগতি হয়নি। অন্য কারণ ছিলঃ লন্ডনের কুইন মেরী কলেজের জন শোয়ার্জ (John Schwarz) এবং মাইক গ্রীন (Mike Green) একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করেন। এই গবেষণাপত্রে দেখানো হয়েছিল তন্তুতত্ত্ব হয়তো আমরা যে কণিকাগুলি পর্যবেক্ষণ করি সেগুলির ভিতরে যেগুলির গঠনগতভাবে বামমুখীতা আছে (built in left handedness)সেরকম কণিকার অস্তিত্ব ব্যাখ্যা করতে পারবে। কারণ যাই হোক না কেন, অনতিবিলম্বে অনেকেই তন্তু নিয়ে গবেষণা করতে থাকেন এবং এ তত্ত্বের একটি রূপ বিকাশ লাভ করে- তার নাম তথাকথিত হেটারোটিক তন্তু (heterotic string)। মনে হয়েছিল এ তত্ত্ব আমাদের পর্যবেক্ষণ করা বিভিন্ন ধরনের কণিকা হয়তো ব্যাখ্যা করতে পারবে।

তন্তুতত্ত্বগুলিও অসীমের পূর্বগামী কিন্তু মনে হয় হেটারোটিক তন্তুর মতো বাগ্বিধিতে এ তত্ত্বে সমস্ত অসীমই বাতিল হয়ে যাবে (যদিও এ ব্যাপারটা এখনও নিশ্চিতভাবে জানা যায় না)। কিন্তু তন্তুগুলির একটি বৃহত্তর সমস্যা রয়েছেঃ তন্তু তত্ত্বগুলি সামঞ্জস্যপূর্ণ হবে শুধুমাত্র যদি সাধারণ চারমাত্রা না থেকে স্থান-কালের দশ কিম্বা ছাব্বিশ মাত্রা থাকে। অবশ্য বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে স্থান-কালের অতিরিক্ত মাত্রা হামেশাই দেখা যায়। আসলে এই অতিরিক্ত মাত্রা এই কাহিনীগুলির প্রয়োজনীয় উপাদানের ভিতর প্রায় এসে যায়। অপেক্ষবাদের অন্তর্নিহিত অর্থঃ আলোকের চাইতে দ্রুতগতিতে গমনাগমন সম্ভব নয়। সুতরাং  অতিরিক্ত

চিত্রঃ ১০.৭
চিত্রঃ ১০.৭

মাত্রা না থাকলে তারকা এবং নীহারিকাগুলিতে যাতায়াত করতে বড় বেশি সময় লাগবে। বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীগুলির চিন্তাধারা হলঃ হয়তো উচ্চতর মাত্রা (dimension) দিয়ে একটি সহজ হ্রস্ব পথ (short cut) পাওয়া যেতে পারে। ব্যাপারটা কল্পনা করা যেতে পারে নিম্নলিখিত রূপেঃ মনে করুন যে স্থানে আমরা বসবাস করি তার মাত্র দুটি মাত্রা আছে এবং সেটি নোঙ্গর ফেলার আংটা কিম্বা টোরাসের (torus) পৃষ্ঠের মতো বঙ্কিম (চিত্র- ১০.৭)। আপনি যদি আংটার ভিতর দিকের কিনারার একপাশে থাকেন এবং অন্যদিকের কোনো এক বিন্দুতে যেতে চান তাহলে আপনার আংটার ভিতরের কিনারা দিয়ে ঘুরে যেতে হবে কিন্তু আপনার যদি তৃতীয় মাত্রায় (third dimension) ভ্রমণ সম্ভব হয় তাহলে আপনি সোজাসুজি অন্যদিকে যেতে পারেন।

এই সমস্ত অতিরিক্ত মাত্রার অস্তিত্ব যদি বাস্তব হয় তাহলে কেন সেগুলি আমাদের নজরে আসে না? কেন আমরা শুধুমাত্র স্থানের তিনটি এবং কালের একটি মাত্রা দকেহতে পাই? ইঙ্গিতটি হলঃ অন্য মাত্রাগুলি বক্র হয়ে অত্যন্ত ক্ষুদ্র আয়তনের স্থানে রয়েছে। সেই স্থানের আয়তন প্রায় এক ইঞ্চির এক মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন ভাগের এক ভাগ। এগুলি এত ক্ষুদ্র যে আমাদের নজরেই আসে না। আমরা দেখতে পাই শুধুমাত্র একটি কালিক এবং তিনটি স্থানিক মাত্রা- সেক্ষেত্রে স্থান-কাল যথেষ্ট মসৃণ (fairly flat)। এটা প্রায় একটি কমলালেবুর বাইরের দিকটির মতো- কাছে থেকে দেখলে সবটাই বঙ্কিম এবং কুঞ্চিত কিন্তু দূর থেকে দেখলে উঁচু নিচ্য দেখতে পাওয়া যায় না; মনে হয় মসৃণ। স্থান-কালের ব্যাপারটাও সেইরকম- অত্যন্ত ক্ষুদ্র মাত্রায় দেখলে দশ মাত্রিক এবং অত্যন্ত বঙ্কিম কিন্তু বৃহত্তর মাত্রায় বক্রতা কিম্বা অতিরিক্ত মাত্রা দেখতে পাওয়া যায় না। এই চিত্রন সঠিক হলে সেটা হবু মহাকাশচারীদের কাছে একটি দুঃসংবাদঃ অতিরিক্ত মাত্রাগুলি এত বেশি ক্ষুদ্র যে মহাকাশযান তার ভিতর দিয়ে যেতে পারবে না। কিন্তু এই ব্যাপারটা আর একটি বৃহৎ সমস্যা উত্থাপন করছে। সব কটি মাত্রা না হয়ে শুধু কয়েকটি মাত্র মাত্রা কেন বক্র হয়ে ক্ষুদ্র গোলকের আকার ধারণ করবে? বোধ হয় মহাবিশ্বের অতি আদিমকালে সমস্ত মাত্রাই অত্যন্ত বক্র ছিল। কিন্তু কেন একটি কালিক মাত্রা এবং তিনটি স্থানিক মাত্রা সমতল হয়ে গেল অথচ অন্য মাত্রাগুলি কঠিন ভাবে বক্র হয়ে রইল?

একটি সম্ভাব্য নরত্বীয় নীতি। দুটি স্থানিক মাত্রা আমাদের মতো জটিল জীব বিকাশের পক্ষে যথেষ্ট মনে হয় না। উদাহরণঃ যদি দ্বিমাত্রিক জীবরা এক মাত্রিক পৃথিবীতে বাস করে তাহলে অন্য কাউকে অতিক্রম করতে হলে তাদের জন্য জন্তুটির গায়ের উপর উঠে পার হতে হবে। দ্বিমাত্রিক জীব যদি এমন কিছু খায় যা সে সম্পূর্ণ হজম করতে পারবে না তাহলে খাদ্যের অবশিষ্টাংশ (মল- অনুবাদক) তাকে যে মুখে সে খেয়েছে সেই মুখ দিয়েই বের করে দিতে হবে। যদি দেহের ভিতরে এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত পর্যন্ত পথ থাকে তাহলে জন্তুটি দু’ভাগে ভাগ হয়ে যাবে। আমাদের দ্বিমাত্রিক জীব ভেঙ্গে পড়বে। (চিত্র- ১০.৮) একইভাবে বলা যায় একটি দ্বিমাত্রিক জীবের রক্ত চলাচল কিভাবে হবে বোঝা কঠিন।

চিত্রঃ ১০.৮

তিনটির বেশি স্থানিক মাত্রা হলেও সমস্যা দেখা দেবে। দুটি বস্তুপিন্ডের দূরত্ব বৃদ্ধির সঙ্গে অন্তর্বর্তী মহাকর্ষীয় বলের হ্রাসপ্রাপ্তি ত্রিমাত্রিক স্থানে মহাকর্ষীয় বলের ঐ অবস্থায় হ্রাস প্রাপ্তির তুলনায় অনেক বেশি হবে (দূরত্ব দ্বিগুণ হলে ত্রিমাত্রিক স্থানে মহাকর্ষীয় বল হ্রাস পেয়ে এক চতুর্থ পরিণত হয়, কিন্তু চারমাত্রিকে পরিণত হয় ১/৮ এ, পাঁচমাত্রিকে পরিণত হয় ১/১৬ এ, এবং মাত্রা বৃদ্ধির মহাকর্ষীয় বলের হ্রাস প্রাপ্তি এভাবেই চলতে থাকে)। এই তথ্যের অর্থ হলঃ পৃথিবী এবং অন্যান্য গ্রহের সূর্যের প্রদক্ষিণ করার কক্ষের স্থিরত্ব হ্রাস পাবে অর্থাৎ বৃত্তাকার কক্ষের সামান্যতম অস্থিরতা হলে (অন্যান্য গ্রহের মহাকর্ষীয় আকর্ষণের ফলে যা হতে পারে) পৃথিবী সর্পিল গতিতে হয় সূর্য থেকে দূরে সরে যাবে নয়তো সূর্যের ভিতরে গিয়ে পড়বে। হয় আমরা ঠান্ডার জমে যাব নয়তো পুড়ে যাব। আসলে তিনটির অধিক মাত্রা হলে দূরত্ব সাপেক্ষ মহাকর্ষের ঐ একই আচরণের অর্থ হবে চাপের সঙ্গে মহাকর্ষের ভারসাম্যের ফলে সূর্য যে স্থির অবস্থায় থাকে সেই স্থির অবস্থায় আর থাকতে পারবে না। হয় টুকরো টুকরো হয়ে যাবে নয়তো চুপসে কৃষ্ণগহ্বরে পরিণত হবে। যাই হোক না কেন পার্থিব জীবনের আলোক এবং তাপের উৎস হিসাবে সূর্য আর কোনো কাজে লাগবে না। ক্ষুদ্রতর মনে বিচার করলে যে বৈদ্যুতিক বল ইলেক্ট্রণগুলিকে পরমাণুর কেন্দ্রককে আবর্তন করে ঘূর্ণায়মান রাখে সেই বলের আচরণও মহাকর্ষীয় বলের মতো হবে। ফলে হয় ইলেক্ট্রণগুলি পরমাণু থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত হয়ে পরমাণু থেকে নির্গত হবে কিম্বা সর্পিল গতিতে কেন্দ্রকে পতিত হবে। যাই হোক না কেন, যে পরমাণুকে আমরা চিনি সে পরমাণু আর আমরা পাব না।

সুতরাং স্পষ্টতই মনে হয় স্থান-কালের যে সমস্ত অঞ্চলে একটি কালিক এবং তিনটি স্থানিক মাত্রা কুঞ্চিত হয়ে ক্ষুদ্র হয়ে যায় নি একমাত্র সেই সমস্ত অঞ্চলেই প্রাণ অর্থাৎ আমরা প্রাণ বলতে যা বুঝি সেই রকম প্রাণের অস্তিত্ব সম্ভব। এর অর্থ হবে দুর্বল নরত্বীয় নীতির আশ্রয় নেওয়া যেতে পারে তবে সে ক্ষেত্রে এ তন্তুতত্ত্ব যে অন্ততপক্ষে মহাবিশ্বে ঐরকম অঞ্চলের অস্তিত্ব অনুমোদন করে সেটি দেখাতে হবে- মনে হয় তন্তুতত্ত্ব এরকম অনুমোদন করে। মহাবিশ্বের অন্যান্য এরকম অঞ্চল কিম্বা এমন একাধিক মহাবিশ্ব (তার অর্থ যাই হোক না কেন) থাকার যথেষ্টই সম্ভাবনা রয়েছে, যেখানে সমস্ত মাত্রাই কুঞ্চনের ফলে ক্ষুদ্র কিম্বা যেখানে চারটি মাত্রাই প্রায় সমতল (flat), কিন্তু সে সমস্ত অঞ্চলে বিভিন্ন সংখ্যক কার্যকর মাত্রাগুলি পর্যবেক্ষণ করার মতো বুদ্ধিমান জীব থাকবে না।

স্থান-কালের প্রতীয়মান মাত্রার সংখ্যার প্রশ্ন ছাড়াও তন্তুতত্ত্বের আরও অনেকগুলি সমস্যা রয়েছে। তন্তুতত্ত্ব পদার্থবিদ্যার চূড়ান্ত ঐক্যবদ্ধ তন্তুরূপে ঘোষিত হওয়ার আগে এই সমস্যাগুলি সমাধান করতে হবে। আমরা এখনো জানি না সমস্ত অসীম পরস্পরকে বাতিল করে কিনা। আমাদের পর্যবেক্ষণ করা বিশেষ ধরনের কণিকার সঙ্গে তন্তুর উপরের তরঙ্গগুলিকে কিভাবে সম্পর্কিত করতে হবে তাও আমরা জানি না। তবুও এই প্রশ্নগুলির উত্তর আগামী কয়েক বছরের ভিতর পাওয়া যাবে বলে মনে হয় এবং এ শতাব্দীর শেষাশেষি আমরা জানতে পারব তন্তুতত্ত্ব সত্যিই বহু আকাঙ্ক্ষিত পদার্থবিদ্যার ঐক্যবদ্ধ তত্ত্ব কি না।

কিন্তু এরকম ঐক্যবদ্ধ তত্ত্ব থাকা কি সত্যিই সম্ভব? না কি আমরা শুধুই মরীচিকার পিছনে ছুটছি? তিনটি সম্ভাবনা আছে বলে মনে হয়ঃ

(১) একটি সম্পূর্ণ ঐক্যবদ্ধ তত্ত্ব সত্যিই রয়েছে এবং আমরা যথেষ্ট বুদ্ধিমান হলে কোনো না কোনোদিন সে তত্ত্ব আবিষ্কার করতে পারব।

(২) মহাবিশ্ব সম্পর্কে চূড়ান্ত কোন তত্ত্ব নেই। শুধু রয়েছে বহু তত্ত্বের অসীম পরম্পরা, সে তত্ত্বগুলি ক্রমশই অধিকতর নির্ভুল ভাবে মহাবিশ্বের বিবরণ দান করে।

(৩) মহাবিশ্বের কোনো তত্ত্ব নেই। একটি বিশেষ সীমার বাইরে ঘটনাবলী সম্পর্কে কোনো ভবিষ্যদ্বাণী করা যায় না। ঘটনাগুলি ঘটে যাদৃচ্ছিক ভাবে, এলোমেলো ভাবে।

অনেকে হয়তো তৃতীয় সম্ভাবনার সপক্ষে বলবেন। তাঁদের যুক্তি, এরকম সম্পূর্ণ এক কেতা বিধি থাকলে সেগুলি ঈশ্বরের নিজের মনের পরিবর্তন করে বিশ্বে হস্তক্ষেপ করার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করত। এ ব্যাপারটি অনেকটা সেই প্রাচীন স্ববিরোধীতার মতোঃ ঈশ্বর কি এমন একটি পাথর তৈরি করতে পারেন যেটা এত ভারী যে তিনি নিজেই সেটা তুলতে পারেন না? ঈশ্বর তাঁর মনের পরিবর্তন করতে চাইতে পারেন এই চিন্তাধারা একটি হেত্বাভাসের (fallacy) উদাহরণ। এদিকে প্রথম দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন সেন্ট অগাস্টিন (Saint Augustine)। এই হেত্বাভাসটি হল ঈশ্বর কালে অবস্থান করেন এই কল্পন। আসলে ঈশ্বর যে মহাবিশ্ব সৃষ্টি করেছেন তখন নিজের মনের বাসনা তাঁর জানা ছিল।

কণাবাদী বলবিদ্যার আবির্ভাবের পর আমরা মেনে নিয়েছি সম্পূর্ণ নির্ভুলভাবে ঘটনাবলী সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করা যায় না এবং কিছু মাত্রায় অনিশ্চয়তা সব সময়ই থাকে। পছন্দ হলে এলোমেলো অনিশ্চয়তার দায়িত্ব ঈশ্বরের হস্তক্ষেপের উপর আরোপ করা যেতে পারে। কিন্তু এই হস্তক্ষেপ হবে অদ্ভুত, কারণ এই হস্তক্ষেপ কোনো উদ্দেশ্যের অভিমুখে এরকম প্রমাণ নেই। যদি থাকত তাহলে সংজ্ঞা অনুসারেই একে এলোমেলো বলা যেত না। আধুনিক যুগে আমরা উপরে উল্লিখিত তৃতীয় সম্ভাবনাটি কার্যকর ভাবে দূর করেছি। এ সম্ভাবনা দূর করেছি বিজ্ঞানের উদ্দেশ্য নতুনভাবে নির্দেশ করেঃ বিজ্ঞানের উদ্দেশ্য এমন এক কেতা বিধি গঠন করা যে বিধি আমাদের অনিশ্চয়তার নীতি দ্বারা নির্ধারিত সীমা অবধি ভবিষ্যদ্বাণী করার ক্ষমতা দান করবে।

দ্বিতীয় সম্ভাবনা হল সংখ্যায় অসীম তত্ত্ব পরম্পরা রয়েছে এবং সে তত্ত্বগুলি ক্রমশই অধিকতর সংস্কৃত (refined) হয়ে চলেছে। এর সপক্ষে আমাদের এ পর্যন্ত সঞ্চিত সমস্ত অভিজ্ঞতার ঐক্য রয়েছে। অনেক সময় আমরা নিজেদের মাপনের সূক্ষ্মতা (sensitivity) বাড়িয়েছি কিম্বা নতুন শ্রেণীর পর্যবেক্ষণ করেছি, ফলে আবিষ্কৃত হয়েছে নতুন এমন পরিঘটনা যেগুলি বর্তমান তত্ত্বের ভবিষ্যদ্বাণীতে নেই। এই পরিঘটনাগুলি ব্যাখ্যা করার জন্য আমাদের আবিষ্কার করতে হয়েছে অধিকতর অগ্রগামী তত্ত্ব। আধুনিক প্রজন্মের বৃহৎ ঐক্যবদ্ধ তত্ত্বের দাবীঃ প্রায় ১০০ GeV এর বৈদ্যুতিক দুর্বল (electroweak) ঐক্যকারী শক্তি (unification energy) এবং এক হাজার মিলিয়ন মিলিয়ন GeV এর বৃহৎ ঐক্যকারী শক্তির (grand unified energy) মধ্যবর্তী অঞ্চলে নতুন কিছু ঘটবে না। এ দাবী যদি ভুল হয় তাহলে বিস্মিত হওয়ার কিছু থাকবে না। যে কার্ক (quark) এবং ইলেক্ট্রনকে আমরা এখন মৌলকণা বলে মনে করি, সত্যিই হয়তো আমরা তার চাইতে মূলগত গঠনের কয়েকটি নতুন স্তর আবিষ্কার করতে পারি।

কিন্তু মনে হয় “বাক্সের ভিতরে বাক্সের” এই পরম্পরাকে সীমিত করতে পারে মহাকর্ষ। যদি কোনো কণিকার শক্তি, যাকে প্ল্যাঙ্ক শক্তি বলে, তার চাইতে অর্থাৎ দশ মিলিয়ন, মিলিয়ন, মিলিয়ন GeV (একের পিঠে উনিশটি শূন্য) এর চাইতে বেশি হয় তাহলে তার ভর এত ঘনীভূত (concentrated) হবে যে নিজেকে অবশিষ্ট মহাবিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করে একটি ক্ষুদ্র কৃষ্ণগহ্বরে পরিণত হবে। সুতরাং অবশ্যই মনে হয় আমাদের উচ্চ থেকে উচ্চতর শক্তিতে গমনের ফলে ক্রমশ অধিকতর সংস্কৃত (refined) তত্ত্বের এই পরম্পরা সীমিত হওয়া উচিৎ এবং তাহলে উচিৎ মহাবিশ্ব সম্পর্কে একটি চূড়ান্ত তত্ত্বের অস্তিত্ব থাকাও। বর্তমানে আমরা গবেষণাগারে খুব বেশি হলে ১০০ GeV –এর কাছাকাছি শক্তি উৎপাদন করতে পারি। এই পরিমাণ শক্তির সঙ্গে প্ল্যাঙ্ক শক্তির পার্থক্য অবশ্য বিরাট। নিকট ভবিষ্যতে আমরা কণিকা ত্বরণ যন্ত্রের সাহায্যেও এই পার্থক্য দূর করতে পারব না। কিন্তু মহাবিশ্বের অতি আদিম অবস্থা এমন একটি ক্ষেত্র (arena) যেখানে এরকম শক্তির অস্তিত্ব ছিল। আমার মনে হয় আমাদের ভিতরকার কয়েকজনের জীবন কালের ভিতরেই আদিম মহাবিশ্ব বিষয়ক গবেষণা এবং গাণিতিক সামঞ্জস্যের প্রয়োজনীয় উপাদানের সম্পূর্ণ ঐক্যবদ্ধ তত্ত্বের পথিকৃৎ হওয়ার খুবই সম্ভাবনা রয়েছে। অবশ্য অনুমান করছি তার আগে আমরা নিজেদের সামগ্রিক ধ্বংস ডেকে আনব না।

যদি সত্যিই আমরা মহাবিশ্ব বিষয়ক চূড়ান্ত তত্ত্ব আবিষ্কার করি তাহলে তার অর্থ কি হবে? প্রথম অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা হয়েছিল- এ বিষয়ে আমরা কখনোই নিশ্চিত হতে পারব না যে আমরা সত্যিই সঠিক তত্ত্ব আবিষ্কার করেছি, তার কারণ তত্ত্ব প্রমাণ করা যায় না। কিন্তু তত্ত্বটি যদি গাণিতিক ভাবে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয় এবং সব সময়ই যদি সে তত্ত্বের ভবিষ্যদ্বাণীর সঙ্গে পর্যবেক্ষণের ঐক্য দেখা যায় তাহলে আমরা সঠিক তত্ত্ব আবিষ্কার করেছি এরকম বিশ্বাস করা যুক্তিসঙ্গত হবে। এই আবিষ্কার মহাবিশ্বকে বুঝবার প্রচেষ্টায় মানব জাতির বৌদ্ধিক সংগ্রামের দীর্ঘ এবং গৌরবময় অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি ঘটাবে। তাছাড়া এই আবিষ্কার সাধারণ মানুষের মহাবিশ্বের শাসনবিধি সম্পর্কিত বোধেও বিপ্লব নিয়ে আসবে। নিউটনের সময় একজন শিক্ষিত লোকের পক্ষে মানবজাতির সমগ্র জ্ঞান ভান্ডার সম্পর্কে একটি ধারণা থাকা সম্ভব ছিল, অন্ততপক্ষে সম্ভব ছিল সে ধারণার সাধারণ রূপরেখা (outline) সম্পর্কে ধারণা করা। কিন্তু তার পর থেকে বিজ্ঞানের বিকাশের গতির ফলে এরকম সম্ভাবনা আর নেই। নতুন নতুন পর্যবেক্ষণ ফলের কারণ দর্শানোর জন্য তত্ত্বগুলি সব সময়েই পরিবর্তিত হচ্ছে। সে তত্ত্বগুলি সাধারণ মানুষের বুঝবার মতো করে সঠিকভাবে হজম হয় না, সরলীকৃতও হয় না। বুঝতে হলে আপনাকে বিশেষজ্ঞ হতে হবে। কিন্তু তা হলেও বৈজ্ঞানিক তত্ত্বগুলির অতি সামান্য অংশ সম্পর্কেই সম্যক জ্ঞানের আশা আপনি করতে পারেন। তাছাড়া বিকাশের গতি এত দ্রুত যে স্কুলে আর বিশ্ববিদ্যালয়ে যা শেখানো হয় সেগুলি সবসময়ই একটু সেকেলে। জ্ঞানের দ্রুত অগ্রসরমান সীমান্তের সঙ্গে সামান্য কয়েকজনই তাল রাখতে পারেন কিন্তু তাঁদেরও সমস্ত সময় ব্যয় করতে হয় এই কাজে এবং তাঁদের বিশেষজ্ঞ হতে হয় একটি ক্ষুদ্র বিষয়ে। যে অগ্রগতি হচ্ছে অথবা অগ্রগতির ফলে যে উত্তেজনা সৃষ্টি হচ্ছে জনগণের অবশিষ্ট অংশের সে সম্পর্কে ধারণা থাকে অতি সামান্য। এডিংটনকে যদি বিশ্বাস করা যায় তাহলে বলতে হয় সত্তর বছর আগে ব্যাপক অপেক্ষবাদ বুঝতেন মাত্র দু’জন। এখনকার দিনে বহু অযুত (দশ হাজার) বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক এই তথ্য বোঝেন এবং বহু নিযুত (মিলিয়ন- দশ লক্ষ) মানুষের এই চিন্তন সম্পর্কে অন্ততপক্ষে একটি ধারণা আছে। যদি সম্পূর্ণ ঐক্যবদ্ধ তত্ত্ব আবিষ্কার হয় তাহলে কালে কালে সে তত্ত্ব হজমও হবে আর সরলীকৃতও হবে এবং স্কুলেও পড়ানো হবে। অন্ততপক্ষে তার রূপরেখা তো পড়ানো হবেই। যে বিধি মহাবিশ্ব শাসন করে এবং আমাদের অস্তিত্বের জন্য দায়ী, আমরা সবাই সে বিধিগুলির কিছু কিছু বুঝতে পারব।

যদি আমরা সম্পূর্ণ ঐক্যবদ্ধ তত্ত্ব আবিষ্কারও করি তাহলে তার অর্থ এই হবে না যে সাধারণভাবে আমরা ঘটনাগুলি সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারব। তার দুটি কারণ। প্রথম কারণ কণাবাদী বলবিদ্যা আমাদের ভবিষ্যদ্বাণী করার ক্ষমতার উপর একটি সীমা আরোপ করে। এই সীমা অতিক্রম করার কোনো উপায় আমাদের নেই। কার্যক্ষেত্রে কিন্তু এই প্রথম গণ্ডি (সীমা) দ্বিতীয় গণ্ডির চাইতে কম অনতিক্রম্য। দ্বিতীয় গণ্ডির উৎস একটি সত্য (fact)। সেই সত্য অনুসারে খুব সহজ সরল পরিস্থিতি ছাড়া কোনো পরিস্থিতিতেই আমরা নির্ভুলভাবে সমীকরণগুলির সমাধান (solve the eqation) করতে পারিনি (এমন কি আমরা নিউটনের মহাকর্ষীয় তত্ত্ব অনুসারে তিনটি বস্তুপিন্ডের গতি সম্পর্কীয় সমীকরণ নির্ভুলভাবে সমাধান করতে পারি না, বস্তুপিন্ডের সংখ্যা এবং তত্ত্বের জটিলতা বৃদ্ধির সঙ্গে সমাধানের অসুবিধাও বৃদ্ধি পায়)। অত্যন্ত চরম পরিস্থিতি ছাড়া অন্যান্য সমস্ত পরিস্থিতিতেই পদার্থের আচরণ নিয়ন্ত্রণকারী বিধিগুলি আমাদের ভিত্তি। তবুও আমরা এই বিষয়গুলিকে সমাধান করা সমস্যার স্তরে নিশ্চয়ই নামিয়ে আনতে পারিনি। এখন পর্যন্ত গাণিতিক সমীকরণের সাহায্যে মানবিক আচরণ সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করার ব্যাপারে আমাদের সামান্যই সাফল্য হয়েছে। সুতরাং যদি আমরা সম্পূর্ণ এক কেতা বিধি আবিষ্কারও করি তাহলেও তার পরবর্তী কালের জন্য থেকে যাবে আমাদের বুদ্ধিকে দ্বন্দ্বযুদ্ধে আহ্বান করার মতো কর্মের দায়িত্ব। সে কর্ম হল জটিল এবং বাস্তব পরিস্থিতিগুলির সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ সম্পর্কে কার্যকর ভবিষ্যদ্বাণী করার ক্ষমতা লাভের জন্য উন্নততর আসন্নতা (approximation) লাভের পদ্ধতি আবিষ্কার (better approximation methods)। একটি সম্পূর্ণ সামঞ্জস্যপূর্ণ ঐক্যবদ্ধ তত্ত্ব শুধুমাত্র প্রথম ধাপঃ আমাদের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য হলঃ আমাদের নিজস্ব অস্তিত্ব এবং আমাদের সর্বপার্শ্বের ঘটনাবলী সম্পূর্ণ বোঝা।

0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x