বিলিয়মের প্রথম বাৰ্তা

১. বিলিয়ম বালাককে বলল, “এখানে সাতটি বেদী তৈরী করো এবং আমার জন্য সাতটি ষাঁড় এবং সাতটি মেষ তৈরি রাখো।” 

২. বিলিয়মের কথামতো বালাক কাজগুলো করলেন। এরপর বালাক এবং বিলিয়ম প্রত্যেকটি বেদীর ওপরে একটি করে মেষ এবং একটি করে ষাঁড় উৎসর্গ করলেন।

৩. তখন বিলিয়ম বালাককে বললেন, “আপনি আপনার হোমবলির কাছে দাঁড়িয়ে থাকুন। আমি অন্য জায়গায় যাবো। হয়তো প্রভু আমার কাছে আসবেন এবং আমার যা বলা উচিৎ সেটা উনি আমায় বলে দেবেন।” এরপর বিলিয়ম একটি উঁচু জায়গায় চলে গেলেন।

৪. ঈশ্বর সেই স্থানে বিলিয়মের কাছে এলে বিলিয়ম বললেন, “আমি সাতটি বেদী তৈরি করেছি এবং উৎসর্গ হিসেবে প্রত্যেকটি বেদীর ওপরে একটি ষাঁড় এবং একটি মেষ হত্যা করেছি।”

৫. তখন প্রভু বিলিয়মকে তাঁর যা বলা উচিৎ তা বললেন। আর বললেন, “বালাকের কাছে ফিরে যাও, এবং আমি তোমাকে যা বলতে বলেছি সেই কথাগুলে৷ বলো।”

৬. সুতরাং বিলিয়ম বালাকের কাছে ফিরে গেলেন। বালাক তখনও সেই হোমবলির কাছে দাঁড়িয়েছিলেন। মোয়াবের সমস্ত নেতারাও তাঁর সঙ্গে সেখানে দাঁড়িয়েছিলেন।

৭. তখন বিলিয়াম এই কথাগুলো বললেনঃ মোয়াবের রাজা বালাক অরামের পূর্বদিকের পর্বত থেকে আমাকে এখানে নিয়ে এসেছেন। বালাক আমাকে বললেন, “আসুন, আমার জন্য যাকোবের বিরুদ্ধে বলুন। আসুন, ইস্রায়েলের লোকেদের বিরুদ্ধে বলুন।”

৮. কিন্তু ঈশ্বর এইসব লোকেদের বিরুদ্ধে নন, সুতরাং আমিও তাদের বিরুদ্ধে কিছু বলতে পারবো না। ঈশ্বর তাদের খারাপ হোক এমন কিছু চান না। সুতরাং আমিও সেটা করতে পারবো না ।

৯. ‘আমি পর্বতের ওপর থেকে ঐ লোকেদের দেখছি। আমি উঁচু পর্বতশৃঙ্গ থেকে তাদের দেখছি। ঐ সমস্ত লোকের৷ একাই বাস করে। তারা অন্য কোনে৷ জাতির অংশ নয়।

১০. যাকোবের লোকেদের কে গণনা করতে পারবে? তারা ধূলোর কণার মতোই সংখ্যায় প্রচুর। ইস্রায়েলের এক চতুর্থাংশ লোককেও কেউ গণনা করতে পারবে না। একজন ভালো লোকের মতো আমাকে মরতে দাও। তাদের মতো সুখে আমার জীবন শেষ হতে দাও।

১১. বালাক বিলিয়মকে বললেন, “আপনি আমার জন্য কি করলেন? আমার শত্রুদের বিরুদ্ধে কথা বলার জন্যে আমি আপনাকে এখানে এনেছিলাম। কিন্তু আপনি তাদের কেবলমাত্র আশীর্বাদ করলেন!

১২. কিন্তু বিলিয়ম উত্তর দিলেন, “প্রভু আমাকে যে কথা বলেছেন, আমি অবশ্যই সেই কথা বলবো।”

১৩. তখন বালাক তাকে বললেন, “তাহলে আমার সঙ্গে আরেকটি জায়গায় আসুন। সেই জায়গা থেকে আপনি তাদের দেখতে পাবেন। আপনি তাদের সকলকে দেখতে পাবেন না, কেবল প্রান্তভাগ দেখতে পাবেন। সেই জায়গা থেকে আমার জন্যে তাদের বিরুদ্ধে আপনার পক্ষে কথা বলা সম্ভব হতে পারে।”

১৪. সুতরাং বালাক বিলিয়মকে সোফীম ক্ষেত্রের ওপরে নিয়ে গেলেন। এই জায়গাটি ছিল পিগা পর্বতের ওপরে। সেই জায়গায় বালাক সাতটি বেদী তৈরী করে প্রত্যেকটি বেদীর ওপরে উৎসর্গস্বরূপ একটি করে ষাঁড় এবং একটি করে মেষ উৎসর্গ করলেন।

১৫. বিলিয়ম বালাককে বললেন, “এই স্থানে আপনার হোমবলির পাশে থাকুন। আমি ঈশ্বরের সঙ্গে দেখা করতে যাবো।”

১৬. “সুতরাং ঈশ্বর বিলিয়মের কাছে এলেন এবং কি বলতে হবে তা বিলিয়মকে বলে দিলেন। এরপর প্রভু বিলিয়মকে বালাকের কাছে ফিরে গিয়ে সেই কথাগুলো বলতে বললেন।

১৭. সুতরাং বিলিয়ম বালাকের কাছে ফিরে গেলেন। বালাক তখনও পর্যন্ত হোমবলির কাছে দাঁড়িয়েছিলেন। মোয়াবের নেতারা তার সঙ্গে সেখানেই ছিলেন। বালাক বিলিয়মকে আসতে দেখে বললেন, “প্রভু কি বলেছেন?”

বিলিয়মের দ্বিতীয় বার্তা

১৮. বিলিয়ম তখন এই ভাববাণী বললেন: “দাঁড়াও বালাক এবং আমার কথা শোনো। আমার কথা শোনো, সিপ্পোরের পুত্র বালাক।

১৯. ঈশ্বর মানুষ নন; তিনি মিথ্যে বলবেন না। ঈশ্বর মানুষ নন; তাঁর সিদ্ধান্তের পরিবর্তন হবে না। যদি প্ৰভু বলেন যে তিনি কোনো কাজ করবেন, তখন তিনি অবশ্যই সে কাজ করবেন। যদি প্রভু কোনো প্রতিজ্ঞা করেন তাহলে তিনি প্রতিজ্ঞা মতে৷ কাজটি করবেন।

২০. প্রভু আমাকে ঐ সমস্ত লোকেদের আশীর্বাদ করতে বলেছেন। প্রভু তাদের আশীর্বাদ করেছেন, সুতরাং আমি সেটা পরিবর্তন করতে পারব না।

২১. ঈশ্বর যাকোবের লোকেদের মধ্যে কোনে৷ অন্যায় দেখেন নি। ইস্রায়েলের লোকেদের মধ্যেও তিনি কোনো পাপ দেখেন নি। প্রভু তাদের ঈশ্বর এবং তিনি তাদের সঙ্গে আছেন। মহান রাজা তাদের সঙ্গে আছেন!

২২. ঈশ্বর ঐসব লোকেদের মিশর থেকে নিয়ে এসেছেন। তিনি তাদের পক্ষে বুনে৷ ষাঁড়ের মতোই শক্তিশালী।

২৩. যাকোবের লোকেদের পরাজিত করতে পারে এমন কোনো ক্ষমতা নেই। ইস্রায়েলের লোকেদের থামাতে পারে এমন কোনো মন্ত্রও নেই। যাকোব সম্পর্কে এবং ইস্রায়েলের লোকেদের সম্পর্কে লোকে এই কথা বলবেঃ ‘ঈশ্বর যে সব মহৎ কাজ করেছেন, তা দেখো!’

২৪. এইসবলোকেরা সিংহের মতোই উঠে দাঁড়ায় এবং যে পর্যন্ত না তার শিকার খায় ও তার রক্ত পান করে সে পর্যন্ত বিশ্রাম করে না।”

২৫. ”তখন বালাক বিলিয়মকে বললেন, “আপনি ওদের শাপও দেবেন না, আশীর্বাদও করবেন না ।”

২৬. বিলিয়ম উত্তর দিলেন, “আমি আপনাকে আগেই বলেছিলাম যে প্রভু আমাকে যা বলতে বলবেন, আমি কেবল সেই কথাই বলতে পারবো।”

২৭. তখন বালাক বিলিয়মকে বললেন, “তাহলে আমার সঙ্গে আপনি আরেকটি জায়গায় আসুন। এমন হতে পারে যে, ঈশ্বর খুশী হবেন এবং সেই স্থান থেকে অভিশাপ দেওয়ার জন্যে আপনাকে অনুমতি দেবেন।

২৮. সুতরাং বালাক বিলিয়মকে নিয়ে পিয়োর পর্বতের ওপরে গেলেন। সেই পর্বতের ওপর থেকে মরুভূমি দেখা যায়।

২৯. বিলিয়ম বললেন, “এখানে সাতটি বেদী তৈরী করুন। তারপর সেই বেদীর জন্য সাতটি ষাঁড় এবং সাতটি মেষকে তৈরী রাখুন।” 

৩০. বিলিয়ম যা করতে বলেছিলেন বালাক ঠিক তাই করলেন। বালাক বেদীগুলোর ওপরে ষাঁড় ও মেষগুলোকে উৎসর্গ করলেন।