মোশি ইস্রায়েলের লোকসংখ্যা গণনা করলেন

১. প্রভু সমাগম তাঁবুতে মোশির সঙ্গে কথা বলেছিলেন। সীনয় মরুভূমিতে সেটা অবস্থিত ছিল। ইস্রায়েলের লোকেরা মিশর ত্যাগ করবার পর দ্বিতীয় বছরের দ্বিতীয় মাসের প্রথম দিনটিতে এই সাক্ষাৎ হয়েছিল। প্রভু মোশিকে বললেন:

২. “ইস্রায়েলের সমস্ত লোকসংখ্যা গণনা করো। প্রত্যেক ব্যক্তির নামের সাথে তার পরিবার এবং পরিবারগোষ্ঠী তালিকাভুক্ত করো। 

৩. তুমি এবং হারোণ ইস্রায়েলের পুরুষদের মধ্যে যাদের বয়স ২০ বছর অথবা তার বেশী তাদের সকলকেই গণনা করবে। (এরাই সেইসব মানুষ যারা ইস্রায়েলের সেনাবাহিনীতে কাজ করতে পারে।) তাদের গোষ্ঠী অনুযায়ী তালিকাভুক্ত করো।

৪. প্রত্যেকটি পরিবারগোষ্ঠী থেকে একজন ব্যক্তি তোমাকে সাহায্য করবে। এই ব্যক্তিটিই হবে তার পরিবারগোষ্ঠীর সর্বময় কর্তা। 

৫. এই নামগুলি হচ্ছে সেইসব লোকের যারা তোমার পাশে থাকবে এবং তোমাকে সাহায্য করবে:

৬. “শিমিয়োনের পরিবারগোষ্ঠী থেকে সূরীশদ্দয়ের পুত্র শলুমীয়েল।

৭. যিহুদার পরিবারগোষ্ঠী থেকে অম্মীনাদবের পুত্র নহশোন;

৮. ইষাখরের পরিবারগোষ্ঠী থেকে সূয়ারের পুত্র নথনেল।

৯. সবূলূনের পরিবারগোষ্ঠী থেকে হেলোনের পুত্র ইলীয়াব;

১০. যোষেফের উত্তরপুরুষ ইফ্রয়িমের পরিবারগোষ্ঠী থেকে অম্মীহূদের পুত্র ইলীশামা; মনঃশির পরিবারগোষ্ঠী থেকে পদাহসূরের পুত্র গমলীয়েল;

১১. বিন্যামীনের পরিবারগোষ্ঠী থেকে গিদিয়োনির পুত্র অবীদান;

১২. দানের পরিবারগোষ্ঠী থেকে অম্মীশদ্দয়ের পুত্র অহীয়েষর;

১৩. আশেরের পরিবারগোষ্ঠী থেকে অভ্রুণের পুত্র পগীয়েল;

১৪. গাদের পরিবারগোষ্ঠী থেকে দ্যুয়েলের পুত্র ইলীয়াসফ;

১৫. নপ্তালীর পরিবারগোষ্ঠী থেকে ঐননের পুত্র অহীরঃ।”

১৬. “ওপরে উল্লিখিত ব্যক্তির৷ তাদের গোষ্ঠীর নেতা। তাদের পরিবারগোষ্ঠীর সর্বময় কর্তা হিসেবে লোকেরা তাদেরই মনোনীত করছিলেন। 

১৭. যারা সর্বময় কর্তা হিসেবে লোকেরা হিসেবে মনোনীত হয়েছিলেন, মোশি এবং হারোণ তাদেরই বেছে নিলেন।

১৮. এবং মোশি ও হারোণ ইস্রায়েলের সমস্ত লোকেদের একসঙ্গে জড়ো করলেন। তখন লোকেদের তাদের পরিবার এবং পরিবারগোষ্ঠী অনুসারে তালিকাভুক্ত করা হল। ২০ বছর অথবা তার ওপরে প্রত্যেক পুরুষের নাম তালিকাভুক্ত হয়েছিল।

১৯. প্রভু যা আদেশ করেছিলেন মোশি ঠিক তাই করেছিলেন। লোকেরা যখন সীনয় মরুভূমিতে ছিল মোশি তখনই তাদের গণনা করেছিলেন।

২০. তারা রূবেণের পরিবারগোষ্ঠীর গণন৷ করেছিল। (রূবেণ ছিলেন ইস্রায়েলের জ্যেষ্ঠ পুত্র।) ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম তাদের পরিবার ও পরিবারগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত কর৷ হয়েছিল।

২১. রূবেণের পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৪৬,৫০০ জন।

২২. তারা শিমিয়োনের পরিবারগোষ্ঠী গণনা করেছিল। ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম তাদের পরিবার এবং পরিবারগোষ্ঠী অনুসারে তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

২৩. শিমিয়োনের পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৫৯,৩০০ জন।

২৪. তারা গাদের পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম তাদের পরিবার ও পরিবারগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত কর৷ হয়েছিল।

২৫. গাদের পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৪৫,৬৫০ জন।

২৬. তারা যিহুদা পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম তাদের পরিবার ও পরিবাগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

২৭. যিহুদার পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৭৪,৬০০ জন।

২৮. তারা ইষাখরের পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম তাদের পরিবার ও পরিবাগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

২৯. ইষাখরের পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৫৪,৪০০ জন।

৩০. তারা সবূলূনের পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। ২০ বছর বয়স্ক অথব৷ তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম নিজ নিজ পরিবার ও পরিবারগোষ্ঠী অনুসারে তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

৩১. সবূলূনের পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৫৭,৪০০ জন।

৩২. তারা ইফ্রয়িমের পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। (ইফ্রয়িম ছিলেন যোষেফের পুত্র।) ২০ বছর বয়স্ক অথব৷ তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম নিজ নিজ পরিবার ও পরিবারগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত কর৷ হয়েছিল।

৩৩. ইফ্রয়িমের পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৪০,৫০০ জন।

৩৪. তার৷ মনঃশি পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। (মনঃশি ছিলেন যোষেফের অপর এক পুত্র।) ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম নিজ নিজ পরিবার ও পরিবারগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

৩৫. মনঃশি পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৩২,২০০ জন।

৩৬. তারা বিন্যামীন পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। ২০ বছর বয়স্ক অথব৷ তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম নিজ নিজ পরিবার ও পরিবারগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

৩৭. বিন্যামীনের পরিবারগোষ্ঠীর মোট সংখ্যা ছিল ৩৫,৪০০ জন।

৩৮. তারা দানের পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম নিজ নিজ পরিবার ও পরিবারগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

৩৯. দানের পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৬২,৭০০ জন।

৪০. তারা আশের পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম নিজ নিজ পরিবার ও পরিবারগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

৪১. আশের পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৪১,৫০০ জন।

৪২. তারা নপ্তালির পরিবারগোষ্ঠীর গণনা করেছিল। ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে সমস্ত পুরুষ যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম, তাদের প্রত্যেকের নাম নিজ নিজ পরিবার ও পরিবারগোষ্ঠী অনুসারেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

৪৩. নপ্তালির পরিবারগোষ্ঠীর মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৫৩,৪০০ জন।

৪৪. মোশি, হারোণ এবং ইস্রায়েলের বারোজন সর্বময় কর্তা এই লোকসংখ্যা গণনা করেছিলেন। (প্রত্যেকটি পরিবারগোষ্ঠীর থেকে একজন করে সর্বময় কর্তা ছিলেন।)

৪৫. “তারা ২০ বছর বয়স্ক অথবা তার ওপরে প্রত্যেক পুরুষের গণনা করেছিল, যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করতে সক্ষম। প্রত্যেক ব্যক্তিকে তার পরিবার অনুসারেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

৪৬. গণিত লোকেদের মোট পুরুষের সংখ্যা ছিল ৬,০৩,৫৫০ জন।

৪৭. ইস্রায়েলের অন্যান্য লোকেদের সঙ্গে লেবীয় পরিবারগোষ্ঠীভুক্ত পরিবারদের গণনা করা হয় নি।

৪৮. প্রভু মোশিকে বললেন:

৪৯. “লেবির পরিবারগোষ্ঠীর লোকেদের গণনা করবে না অথবা ইস্রায়েলের অন্যান্য লোকেদের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত করবে না। 

৫০. লেবীয়দের চুক্তির পবিত্র তাঁবুর এবং তার সমস্ত জিনিসের দায়িত্ব রাখ। তারা অবশ্যই পবিত্র তাঁবুর সাথে তার সব জিনিসপত্র বহন করবে ও তার যত্ন নেবে এবং পবিত্র তাঁবুর চারপাশেই শিবির স্থাপন করবে।

৫১. যখনই পবিত্র তাঁবু স্থানান্তরিত হবে, লেবীয়রাই এটাকে স্থানান্তরিত করবে। যখনই বিরতির সময় পবিত্র তাঁবুর প্রতিষ্ঠা করা হবে তখন অবশ্যই লেবীয়র৷ এটিকে প্রতিষ্ঠা করবে। একমাত্র তারাই পবিত্র তাঁবুর রক্ষণাবেক্ষণ করবে। লেবীয় পরিবারগোষ্ঠী বহির্ভূত কোনো ব্যক্তি যদি তাঁবুর যত্নের ব্যাপারে সচেষ্ট হয়, তাহলে তার মৃত্যু অনিবার্য।

৫২. ইস্রায়েলের লোকেরা তাদের আলাদা গোষ্ঠীতে শিবির স্থাপন করবে। প্রত্যেক ব্যক্তি তার পারিবারিক পতাকার কাছাকাছি থাকবে।

৫৩. লেবীয়র৷ চুক্তির পবিত্র তাঁবুর চারপাশে তাদের শিবির স্থাপন করবে৷ তাহলে ইস্রায়েলের জনগোষ্ঠীর প্রতি ঈশ্বর তাঁর ক্রোধ প্রকাশ করবেন না। তারা পবিত্র তাঁবুর দায়িত্বে থাকবে এবং তা পাহারা দেবে।”

৫৪. সুতরাং প্রভু মোশিকে যা আদেশ করেছিলেন, ইস্রায়েলের লোকেরা সেই অনুসারে সব কিছু করেছিল।