বিভিন্ন জাতির বৃদ্ধি ও বিস্তার

১. শেম, হাম ও যেফৎ এই তিনজন ছিল নোহর পুত্র। বন্যার পরে এই তিন জনের আরও বহু সন্তান-সন্ততির জন্ম হল। শেম, হাম ও যেফতের উত্তরপুরুষরা:

 

যেফতের উত্তরপুরুষ

২. যেফতের পুত্রগণ হল: গোমর, মাগোগ, মাদয়, যবন, তূবল, মেশক এবং তীরস।

৩. গোমরের পুত্রগণ হল: অস্কিনস, রীফৎ এবং তোগর্ম।

৪. যবনের পুত্রগণ হল: ইলীশা, তর্শীশ, কিত্তীম এবং দোদানীম।

৫. ভূমধ্যসাগর অঞ্চলে যে সকল মানুষের বাস তারা সকলেই যেফতের সন্তান-সন্ততি। প্রত্যেক পুত্রের নিজস্ব ভূমি ছিল। সমস্ত পরিবারই বৃদ্ধি পেতে পেতে একটি জাতিতে পরিণত হয়। প্রত্যেক জাতির নিজস্ব ভাষা ছিল।

 

হামের উত্তরপুরুষ

৬. হামের পুত্রগণ হল: কূশ, মিশর, পূট এবং কনান।

৭. কূশের পুত্রগণ হল: সবা, হবীলা, সপ্তা, রয়মা এবং সপ্তকা। রয়মার পুত্রগণ হল: শিবা এবং দদান।

৮. নিম্রোদ নামেও কুশের এক পুত্র ছিল। কালক্রমে নিম্রোদ দারুন শক্তিমান পুরুষে পরিণত হয়।

৯. প্রভুর সম্মুখে নিম্রোদ একজন বড় শিকারী হয়ে উঠল। সেজন্য তার সঙ্গে অন্যান্য লোকদের তুলনা করে সকলে বলতো, “ঐ মানুষটি নিম্রোদের মত, এমন কি প্রভুর সামনেও দারুণ শিকারী।”

১০. নিম্রোদের রাজত্ব বাবিল থেকে শিনিয়র দেশে এরক অক্কদ এবং কল্নী পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছিল।

১১. নিম্রোদ অশূরেও গিয়েছিল। নিম্রোদ অশূর দেশে নীনবী, রহোবোৎ-পুরী, কেলহ এবং

১২. রেষণ (নীনবী এবং কেলহের মধ্যবর্তী ভুভাগে রেষণ মহানগরের পত্তন হয়।)

১৩. মিশর ছিল লূদীয়, অনামীয়, লহাবীয়, নপ্তুহীয়,

১৪. পথ্রোষীয়, কস্লূহীয় আর কপ্তোরীয় অঞ্চলগুলির অধিবাসীদের জনক। (পলেষ্টীয়রা কস্লূহীয় দেশ থেকে এসেছিল।)

১৫. কনান ছিল সীদোনের পিতা। সীদোন কনানের প্রথম সন্তান। কনান হিত্তীয়দের পূর্বপুরুষ ‘হেতেরও’ পিতা ছিলেন। হেৎ থেকে হিত্তীয়দের উদ্ভব।

১৬. কনান ছিলেন যিবুষীয়, ইমোরীয় জনগোষ্ঠী, গির্গাশীয়দের পিতা।

১৭. হিব্বীয় জনগোষ্ঠী, অর্কীয় জনগোষ্ঠী, সীনীয় জনগোষ্ঠী,

১৮. অর্বদীয় জনগোষ্ঠী, সমারীয় জনগোষ্ঠী এবং হমাতীয় জনগোষ্ঠী কনান থেকে উদ্ভুত হয়। পরে কনানীয় গোষ্ঠীগুলি পৃথিবীর বিভিন্ন অংশে ছড়িয়ে পড়ল।

১৯. কনানীয়দের দেশ উত্তরে সীদোন থেকে দক্ষিণে গরার পর্যন্ত, পশ্চিমে ঘসা থেকে পূর্বে সদোম ও ঘমোরা পর্যন্ত এবং অদ্মা ও সবোয়ীর থেকে লাশা পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল।

২০. এই সমস্ত মানুষই ছিল হামের উত্তরপুরুষ। এইসব পরিবারগুলির নিজস্ব ভাষা ও নিজস্ব দেশ ছিল। তারা ক্রমে ক্রমে পৃথক পৃথক জাতি হয়ে উঠল।

 

শেমের উত্তরপুরুষ

২১. যেফতের বড় ভাই ছিল শেম। শেমের একজন উত্তরপুরুষ হল এবর এবং এবর সমস্ত হিব্রু জনগোষ্ঠীর জনক রূপে পরিচিত।

২২. শেমের পুত্ররা হল: এলম, অশূর, অর্ফক্ষদ, লূদ এবং অরাম।

২৩. অরামের পুত্রেরা হল: উষ, হূল, গোখর এবং মশ।

২৪. অর্ফক্ষদের পুত্র শেলহ, শেলহের পুত্র এবর।

২৫. এবরের দুই পুত্র। এক পুত্রের নাম পেলগ। তার আমলে পৃথিবী বিভক্ত হয় বলে তার ঐ নাম হয়। অন্য পুত্রের নাম যক্তন।

২৬. যক্তনের পুত্রেরা হল: অল্মোদদ, শেলফ, হৎসর্মাবৎ, যেরহ,

২৭. হদোরাম, ঊষল, দিক্ল,

২৮. ওবল, অবীমায়েল, শিবা,

২৯. ওফীর, হবীলা এবং যোবব। এরা সবাই ছিল যক্তনের পুত্র।

৩০. পূর্ব দিকে মেষা এবং পার্বত্য দেশের মধ্যবর্তী ভূভাগে তারা বাস করত। মেষা ছিল সফার দেশের দিকে।

৩১. এরা সবাই ছিল শেমের পরিবারের অন্তর্গত। পরিবার, ভাষা, দেশ ও জাতি অনুসারেই তাদের সাজানো হয়েছে।

৩২. এই সবগুলোই নোহের পুত্রদের পরিবার। পরিবারগুলি তালিকা তাদের জাতি অনুসারে প্রস্তুত করা হয়েছে। প্লাবনের পরে এই পরিবারগুলি থেকেই সারা পৃথিবীতে মনুষ্য সমাজের বিস্তার হয়েছে।

শেমের… পরিচিত আক্ষরিক অর্থে, “এবারের পুত্রদের পিতা শেমের পুত্র হয়ে জন্মেছিল।”

পূর্ব দিকে অর্থাৎ টাইগ্রিস ও ফরাৎ নদীর মধ্যবর্তী ভূভাগ থেকে পারস্য উপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত অঞ্চল।

0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x