আদম পরিবারের ইতিহাস

১. এই বই হল আদম পরিবারের বিষয় নিয়ে। ঈশ্বর নিজের ছাঁচে মানুষকে সৃষ্টি করেছিলেন।

২. ঈশ্বর মানুষকে পুরুষ ও স্ত্রীরূপে সৃষ্টি করেছিলেন। এবং সেই সৃষ্টির দিনে ঈশ্বর আশীর্বাদ করে তাদের নাম দিলেন “আদম।”

৩. আদমের যখন ১৩০ বছর বয়স তখন তার আর একটি পুত্র হল। পুত্রটিকে দেখতে হুবহু আদমের মতো। আদম তার নাম রাখলেন শেথ।

৪. শেথের জন্মের পর ৮০০ বছর আদম বেঁচে ছিলেন। এই সময়ের মধ্যে আদমের আরও পুত্রকন্যা হল।

৫. সুতরাং আদম মোট ৯৩০ বছর বেঁচে ছিলেন। তারপর তাঁর মৃত্যু হল।

৬. শেথের যখন ১০৫ বছর বয়স তখন তাঁর একটি পুত্র হয়। তার নাম রাখা হয় ইনোশ।

৭. ইনোশের জন্মের পরে শেথ ৮০৭ বছর বেঁচে ছিলেন। ইতিমধ্যে শেথের আরও পুত্রকন্যা হয়।

৮. সুতরাং শেথ বেঁচে ছিলেন মোট ৯১২ বছর। তারপর তাঁর মৃত্যু হয়।

৯. ইনোশের যখন ৯০ বছর বয়স তখন তাঁর কৈনন নামে একটি পুত্র হয়।

১০. কৈননের জন্মের পর ইনোশ ৮১৫ বছর বেঁচে ছিলেন। ইতিমধ্যে তাঁর আরও পুত্রকন্যা হয়।

১১. সুতরাং ইনোশ মোট ৯০৫ বছর বেঁচে ছিলেন। তারপর তাঁর মৃত্যু হয়।

১২. কৈননের ৭০ বছর বয়সে তাঁর মহললেল নামে একটি পুত্র হয়।

১৩. মহললেলের জন্মের পর কৈনন ৮৪০ বছর বেঁচে ছিলেন। ইতিমধ্যে কৈননের আরও পুত্রকন্যা হয়।

১৪. সুতরাং কৈনন মোট ৯১০ বছর বেঁচে ছিলেন। তারপর তাঁর মৃত্যু হয়।

১৫. মহললেলের যখন ৬৫ বছর তখন তাঁর যেরদ নামে একটি পুত্র হয়।

১৬. যেরদের জন্মের পর মহললেল ৮৩০ বছর বেঁচে ছিলেন। ইতিমধ্যে তাঁর আরও পুত্রকন্যা হয়।

১৭. সুতরাং মহললেল মোট ৮৯৫ বছর বেঁচে ছিলেন। তারপর তাঁর মৃত্যু হয়।

১৮. যেরদের যখন ১৬২ বছর বয়স তখন তাঁর হনোক নামে একটি পুত্র হয়।

১৯. হনোকের জন্মের পর য়েরদ ৮০০ বছর বেঁচে ছিলেন। ইতিমধ্যে তাঁর আরও পুত্রকন্যা হয়।

২০. সুতরাং যেরদ মোট ৯৬২ বছর বেঁচে ছিলেন। তারপর তাঁর মৃত্যু হয়।

২১. হনোকের যখন ৬৫ বছর বয়স তখন মথূশেলহ নামে তাঁর একটি পুত্র হয়।

লোকেরা… করলো আক্ষরিক অর্থে, “লোকেরা যিহোবা নাম নিতে শুরু করেছিল।

২২. মথূশেলহর জন্মের পর হনোক আরও ৩০০ বছর ঈশ্বরের সঙ্গে পদচারণা করেন। ইতিমধ্যে তাঁর আরও পুত্রকন্যা হয়।

২৩. সুতরাং হনোক মোট ৩৬৫ বছর বেঁচে ছিলেন।

২৪. একদিন হনোক ঈশ্বরের সঙ্গে পদচারণা করতে করতে অদৃশ্য হয়ে গেলেন। ঈশ্বর তাঁকে নিয়ে নিলেন।

২৫. মথূশেলহর যখন ১৮৭ বছর বয়স তখন তাঁর লেমক নামে একটি পুত্র হয়।

২৬. লেমকের জন্মের পর মথূশেলহ ৭৮২ বছর বেঁচে ছিলেন। ইতিমধ্যে তাঁর আরও পুত্রকন্যা হয়।

২৭. সুতরাং মথূশেলহ মোট ৯৬৯ বছর বেঁচে ছিলেন। তারপর তাঁর মৃত্যু হয়।

২৮. লেমকের যখন ১৮২ বছর বয়স তখন তাঁর একটি পুত্র হল।

২৯. লেমক পুত্রের নাম রাখলেন নোহ। তিনি বললেন, “ঈশ্বর ভূমিকে অভিশাপ দিয়েছেন বলে কৃষকরূপে আমাদের কঠোর পরিশ্রম করতে হয়। কিন্তু নোহ আমাদের বিশ্রাম দেবে।”

৩০. নোহের জন্মের পর লেমক ৫৯৫ বছর বেঁচে ছিলেন। ইতিমধ্যে তাঁর আরও পুত্রকন্যা হয়।

৩১. সুতরাং লেমক মোট ৭৭৭ বছর বেঁচে ছিলেন। তারপর তাঁর মৃত্যু হয়।

৩২. নোহর ৫০০ বছর বয়সে শেম, হাম এবং যেফৎ নামে তিনটি পুত্র হয়।

0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x